দু’পায়ে রংপুর (পর্ব-০১)

দিন-০১
২৮.৮.৯.৮০= ৩৮.৬৬কিমি।

দিনাজপুর-কান্তজীউ মন্দির- বীরগঞ্জ- ঠাকুরগাঁও।

ভোরে যখন বের হয় তখন অনেকে হাটতে বের হচ্ছে মাত্র। সকালে উঠে বের হওয়া অনেকটা চ্যালেঞ্জিং ছিল। চ্যালেঞ্জ ভালভাবেই সম্পূর্ন হয়েছে।
কারিতাস রেস্ট হাউস থেকে বের অটো করে দিনাজপুর ০ কিমি যাই। ০ কিমি থেকে হাটা শুরু করি জেলা সদরের মধ্যদিয়ে। কিছুক্ষণ পর আমরা রংপুর-দিনাজপুর মহাসড়কে উঠে পড়ি। কিছুক্ষণ হাটার পর গোপালগঞ্জে সকালের নাস্তা সেরে আবার হাটা শুরু করি। মহাসড়কে আস্তে আস্তে রোদ পড়তে শুরু করেছে, যেটা আমাদের জন্য খুবই বাজে ব্যপার হয়ে দাড়াই।
মহাসড়কের দুইপাশে কৃষি অধিদপ্তরের বিভিন্ন প্রজেক্ট আর অফিস। চট্টগ্রামের মানুষ হয়ত অনেকগুলোর নামও শুনে নাই। কৃষি প্রধান এলাকা হওয়াতে সরকারের আলাদা প্রজেক্ট কৃষি উন্নয়নের। পথে অনেক গুলো অটো রাইস মিল। একটাতে গিয়ে কিছুসময় ধান চাষের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলাপ আলোচনা করলাম। উনি এদিকে চাষ নিয়ে অনেক ধারণা দিল।


মাঝে ২-৩ বার চা বিরতি চলে,আবার পথা চলা শুরু, আস্তে আস্তে তেবাগা মোড় চলে আসি। তেবাগা মোড়ে কাল,কেক এর বিরতি। বিশ্রাম শেষ করে ঢেপা নদী পাড় হয়ে কান্তজীউ মন্দির পৌছে গাছের নিচে শুয়ে পড়া ছাড়া কোন উপায় ছিল না। মন্দিরের পুরোহিত একজন মন্দিরের গায়ে খোদাই করা বিভিন্ন চিত্রকর্মের ব্যখ্যা দিলেন। মন্দির থেক যখন বের হয় তখন সূর্য পুরোপুরি মাথার উপর, প্রতি এক পা দিতে অনেক কষ্ট মনে হচ্ছে। গা পুরো পুরে যাচ্ছে তখন। ব্যাধ্য হয়ে নয়াবাদ মসজিদে গিয়ে কিছুক্ষণ বিশ্রাম নেই। মসজিদ থেকে ফেরার পথে রোদ তখনও পুরোপুরি তেজে বিদ্যমান। কিছুক্ষণ বসে কাটানোর সিদ্ধান্ত নেই। আল্লাহ অশেষ রহমত বলা চলে, ১০-১৫ মিনিট পর রোদ পুরো মেঘে ঢেকে যাই, মুহূর্তে আবহাওয়ায় পুরোপুরি পরিবর্তন। এই অবস্থা থাকতে থাকতে আমরা দ্রুত পা চালানোর সিদ্ধান্ত নেই।
গ্রামের রোড দিয়ে হাটার সিদ্ধান্ত নেই দুইজনে, রাস্তা এক কথায় অসাধারণ, পাশে বয়ে যাওয়া নদী আর দুপাশে গাছে ঘেরা রাস্তা!
বীরগঞ্জ পৌছার আগে আমরা বীরগঞ্জ ন্যাশনাল পার্কের মধ্য দিয়ে কিছুক্ষণ আস্তেধীরে হাটতে থাকি, একপাশে অনেক বড় শাল গাছ অন্য পাশে আবাদি জমি, এককথায় অসাধারণ।


বিকাল ৫.৩০ নাগাদ আমরা বীরগজ্ঞ পোছাই। বীরগঞ্জ পোছানোর পর সন্ধ্যা হয়ে যাওয়াই আমরা কিছু পথের জন্য গাড়ীতে উঠি।
ঠাকুরগাঁও জেলা সদরের আগে নেমে আবার হাটাশুরু করি। ঠাকুরগাঁও মূল চত্বর হয়ে জেলা পরিষদে এসে আজকের দিনের সমাপ্তি।

#RangpurDivisionWalk
#SayNoToEnvironmentalPollution
#KeepSafeEnvironment_duringTravel
#SayNoToPlasticPollution

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *